বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়
মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ২৯ অক্টোবর ২০২০

“Art Against Corona” শীর্ষক মাসব্যাপী চিত্রকর্ম প্রদর্শনীর উদ্বোধন


প্রকাশন তারিখ : 2020-10-27

বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে একাডেমির চারুকলা বিভাগের ব্যবস্থাপনায় ২৭ অক্টোবর থেকে ২৬ নভেম্বর ২০২০ জাতীয় চিত্রশালা ভবনের ১ ও ২নং গ্যালারীতে ‘Art Against Corona’ শীর্ষক মাসব্যাপী চিত্রকর্ম প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। ২৭ অক্টোবর বিকাল 4টায় একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে মাসব্যাপী প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন এমপি। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী জনাব কে এম খালিদ এমপি, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সম্মানীত সচিব মো. বদরুল আরেফীন এবং বরেণ্য চিত্রশিল্পী জামাল আহমেদ। বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী এর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সচিব জনাব মো. নওসাদ হোসেন।

 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মাননীয় মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা যে বীরের জাতি করোনায় তা আবারো প্রমানিত হলো। করোনায় কেউ না খেয়ে মরেনি। করোনার সময় দেশ মাতৃকার জন্য সবাই কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করেছেন। করোনার সময় আমাদের শিল্পীদের দুর্দিনে করোনার বিরুদ্ধে শিল্পী শীর্ষক এই আয়োজন সত্বিই প্রসংশনীয় এবং ভবিষ্যতের জন্য অনুকরণীয় বিষয়।’

 

বিশেষ অতিধির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘করোনার বিরুদ্ধে যুদ্ধ একটি ব্যাতিক্রমধর্মী আয়োজন। করোনার সময় সারা পৃথিবীতে অন্যকোথাও এরকম আয়োজন হয়েছে বলে আমাদের জানা নেই। শিল্পীদের নিয়ে মহতি এই উদ্যোগের জন্য আয়োজক প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিকে ধন্যবাদ জানাই।’

 

সভাপতির বক্তব্যে লিয়াকত আলী লাকী বলেন, ‘বিশ্বকে নান্দনিক ও মানবিক করার জন্য আমাদের মনিষীরা যে শক্তি আমাদের দিয়েছেন তার কারনেই আমরা এ ধরনের আয়োজন করতে পেরেছি। ভবিষ্যতে এধরনের আয়োজন অব্যাহত থাকবে।’

 

উদ্বোধনী আলোচনা শেষে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। প্রদর্শনী প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকলের জন্য উন্মুক্ত।

 

করোনা ভাইরাসজনতি সংকটে আমাদের প্রাণপ্রিয় বাংলাদেশসহ সারা বিশ্ব আজ বিপর্যস্ত । এই ভাইরাস মোকাবিলায় বিশ্বের সবাই প্রাণপণ যুদ্ধ করে যাচ্ছ। Art Against Corona’ বাংলাদেশের একটি অনবদ্য উদ্যোগ। সম্ভবত বিশ্বের আর কোন দেশ করোনার বিরুদ্ধে শিল্প নিয়ে এমন কোন উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। সারা দেশের মানুষের মনোবল সুদৃঢ় রাখার জন্য বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি অনলাইনে সারাদেশব্যাপী সাংস্কৃতিক কর্মকান্ড পরিচালনা করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে ঢাকাসহ দেশের প্রতিটি জেলাকে সম্পৃক্ত করে দশ সহাশ্রাধিক শিল্পী ‘Art Against Corona’ অনলাইন অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়েছেন। এখানে শিশু-কিশোর, যুব, প্রবীণ এবং বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুসহ প্রায় সব মাধ্যমের শিল্পীরা করোনাযুদ্ধে সংস্কৃতি নিয়ে সামিল হয়েছেন যা সারাদেশের মানুষের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে।

 

আশার আলো জ্বালিয়ে শিল্পের অমৃত জগতে শিল্পীরা ফিরবেই। এমনই প্রত্যাশা, ভালোবাসা আর সৃজন স্পৃহার আলো ছড়িয়ে তনি শতাধকি চারুশিল্পী যোগ দিয়েছেন এই মহা-আয়োজনে। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর ভাবনা ও পরিকল্পনায় শিল্পীদের জন্য এই আয়োজন ছিল ব্যতিক্রমি ও উদ্দীপনামূলক। দেশের তিনশতাধিক শিল্পীকে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি এক চমৎকার আয়োজনে সামিল করে তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছে। যার উদ্দেশ্য ছিল শিল্পী ও শিল্পের সুরক্ষা, তাঁদের মনোবল বৃদ্ধি করা।

জাতীয় চিত্রশালা ভবনের বিভিন্ন গ্যালারী, প্লাজা এবং স্টুডিওতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্য বিধি মেনে শিল্পীদের ছবি আঁকার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। ৭ জুলাই ২০২০ থেকে শুরু করে ২০ জুলাই ২০২০ পর্যন্ত প্রতিদিন নির্দিষ্ট সংখ্যক শিল্পী তাঁদের পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী ছবি আঁকতে আসেন। পরিচ্ছন্ন পরিবেশে প্রতিটি স্টুডিওতে স্বল্প সংখ্যক শিল্পীদের নিয়ে এই আর্টক্যাম্পটি ছিল একটি মডেল আর্টক্যাম্প। এছাড়াও ঢাকার বাইরে থাকা শতাধিক শিল্পীকে তাঁদের বাসায় ক্যানভাস, রং-সহ প্রয়োজনীয় উপকরণ পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। প্রত্যেক শিল্পীর জন্যই সম্মানীর ব্যবস্থা করা হয়েছে, যা বিশেষভাবে তরুণ শিল্পীদের জন্য ছিল অত্যন্ত উৎসাহব্যাঞ্জক।

করোনার বিরুদ্ধে এই যুদ্ধে শিল্পীরা তাঁদের ক্যানভাসে ফুটিয়ে তুলেছেন নিজেদের আশা, স্বপ্ন আর আলোর জন্য প্রতীÿা। তাঁদের তুলি-কলমে ছিলো দু:সময়ের প্রহরকে অতিক্রম করে সুস্থ-সুন্দর এক ভোরের জন্য প্রত্যাশা। এই মহাসংকট কালে বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শিল্পীদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য যে কাজগুলো করেছেন, তা স্মরণীয় হয়ে থাকবে। ক্যাম্পে আঁকা ৩২৫ জন শিল্পীর চিত্রকর্ম নিয়ে আগামী ২৭ অক্টোবর ২০২০ থেকে একাডেমির ১ ও ২নং গ্যালারিতে মাসব্যাপী প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। বর্তমান করোনা পরিস্থিতির কারণে গ্যালারির পাশাপাশি এ সকল ছবি অনলাইনে ভার্চুয়াল ডিসপ্লে এর মাধ্যমে প্রচার করা হবে, যাতে সারাদেশের বিপুল সংখ্যক শিল্পী ও শিল্পরসিক দর্শক এ প্রদর্শনী উপভোগ করতে পারেন।

উদ্বোধনী আলোচনা শেষে কবি পার্থ মুখার্জীর কবিতা ‘সঙ্খচিল ও কবি মীনার বসুনিয়ার তিনি তোমাদের একার ঈশ্বর নন’ কবিতার অংশ বিশেষ আবৃত্তি করেন বরেণ্য বাচিকশিল্পী লায়লা আফরোজ এবং কবি রীতা নাহারের কবিতা পৃথিবীর অসুখে তুমি যে মানবতার ঢাল’ আবৃত্তি করেন বরেণ্য বাচিকশিল্পী মীর বরকত। মঙ্গল হোক এই শতকে মঙ্গর সবার গানের কথায় আইরিন পারভীন এর নৃত্য পরিচালনায় এবং সাইফুল ইসলাম ইভান এর নৃত্য পরিচালনায় লিয়াকত আলী লাকী’র কথা ও সুরে এ মাটি নয় জঙ্গিবাদের’ ২টি সমবেত নৃত্য পরিবেশন করে  বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির নৃত্যশিল্পীবৃন্দ। প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের  লীলাভূমি বাংলাদেশ। এখানে বাঙালিসহ নানান জাতি-গোষ্ঠীর রয়েছে সৌহার্দপূর্ণ বসবাস। এখানে রয়েছে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী সম্প্রদায়ের বর্ণিল সংস্কৃতি। ফিফা চাকমা’র নৃত্য পরিচালনায় সম্প্রীতির নৃত্য পরিবেশন করে চাকমা, মারমা, গারো, ত্রিপুরা বিভিন্ন ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর শিল্পীবৃন্দ।

জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনের সামনে বিকাল ৫টা থেকে ৬টা শিল্পী অসীম হালদার সাগর এর পরিচালনায় পারফরমেন্স আর্ট ব্রিথিং উইথ ল্যাঙ্গুয়েজ-২, বিকাল ৫টা থেকে ৫.৩০টা ১নং গ্যালারীর সামনে শিল্পী আবু নাসের রবি এর পরিচালনায় ‘যদিও সুন্দর ঘিরে থাকে আমাদের তুবুও তাকে খুঁজতে আমরা বাগানে যাই’ এবং শিল্পী সরকার নাসরিন টুনটুন এর পরিচালনায় ভাস্কয্য গ্যালারীর সামনে ‘আশার আলোর উপস্থিতি’ পারফরমেন্স আর্ট পরিবেশিত হয়।

 

প্রদর্শনী প্রতিদিন সকাল ১১ টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকলের জন্য উন্মুক্ত।


Share with :

Facebook Facebook